ইলমের শ্রেণী বিন্যাস ও তার গুরুত্ব

ইলম এর অর্থ হচ্ছে- জানা, জ্ঞাত হওয়া। ইলম এমন একটি প্রদীপ বা বাতি, যার দ্বারা ভালাে-মন্দ, হালাল-হারাম জানা যায়।
হাদীসে নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন- ‘সকল মুসলমান নর-নারীর জন্য ইলমে দীন শিক্ষা করা ফরয।’ আর স্ত্রী সহবাস বিষয়ক ইলমও এমন একটি ইলম, যার জ্ঞান রাখা সকল মুসলমান নারী-পুরুষের জন্য আবশ্যক। কোনাে পুরুষ বা মহিলা এ জ্ঞান শিক্ষা করা থেকে মুক্ত থাকতে পারবে না।

কিন্তু বড়ই আশ্চর্যের কথা যে, এ বিষয়ে জ্ঞানার্জনকারীকে বাঁকা দৃষ্টিতে দেখা হয়। অথচ দীন-দুনিয়া উভয়টির ক্ষেত্রেই এ বিষয়ে জ্ঞান রাখা অনেক জরুরি।

যদি কোনাে ব্যক্তি সঠিক পথে থাকে এবং নিজে সঠিকভাবে চলে, তাহলে সে কখনাে এ ইলম শিক্ষা করাকে দোষণীয় মনে করতে পারে না। কেননা সকল শ্রেণীর মানুষ, চাই সে সাধারণ হােক বা সর্বোচ্চ সম্মানের আসনে অধিষ্ঠিত হােক না কেন; স্ত্রী সহবাসের প্রয়ােজনীয়তা সে অনুভব করবেই। দুনিয়ার জীবনে বিবাহ করার গুরুত্ব অনুভব করবে।

যে মহিলা আল্লাহ্ তাআলাকে রাজী-খুশি করার উদ্দেশ্যে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হবে, আল্লাহর নিকট সে অনেক বড় সাওয়াব প্রাপ্তির অংশীদার হয়ে যাবে।

নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, “তােমাদের মধ্যে সেই ব্যক্তিই সর্বোত্তম, যে তার স্ত্রীর নিকট উত্তম বা তার সাথে সদাচরণ করে।

স্ত্রীর সাথে উত্তম আচরণ করতে হলেও এ বিষয়ে জ্ঞান থাকা জরুরি। আমার উস্তাদ, শায়খ বা পীর আল্লামা ডাক্তার মুহাম্মাদ যাহেদ আমরহী রহমাতুল্লাহি আলাইহি তাঁর কোনাে এক মজলিসে বলেন,

ইলম দু-ধরনের-
(১) علم الأبدان (ইলমুল আবদান) বা শরীর বিষয়ক ইলম।
(২) علم الأديان (ইলমুল আদইয়ান) বা ধর্ম বিষয়ক ইলম।

তিনি বলেন, শরীর ও ধর্ম বিষয়ক ইলমই হল আসল ইলম। বাকি সব প্রযুক্তি বা কৌশল। শরীর বিষয়ক ইলম, ধর্ম বিষয়ক ইলমের তুলনায় অগ্রগণ্য। কেননা শরীর সুস্থ থাকলে দীনের উপর চলা ও হুকুম-আহকাম মানা অতি সহজ। পক্ষান্তরে শরীর অসুস্থ থাকলে, দীনের উপর চলা ও হুকুম-আহকাম মানা বড় কঠিন।

শরীর সুস্থ থাকলে নামায পড়া, রােযা রাখা সহজ হয়ে যায়। তদ্রুপভাবে হজ্জ আদায় করা যায়। এমনকি স্ত্রী ও বাবা-মায়ের হকও আদায় করা সম্ভব হয়। আর যদি শরীর সুস্থ না থাকে, তাহলে দীন-দুনিয়ার কোনাে কাজ করা সম্ভব হয় না।

You may also like...

error: Content is protected !!